শিরোনাম

» ঈদে প্রস্তুত গাজীপুরে রিসোর্টগুলো, বিশেষ ছাড়

ঈদে প্রস্তুত গাজীপুরে রিসোর্টগুলো, বিশেষ ছাড়

ঢাকা: ঈদের ছুটিকে কেন্দ্র করে গাজীপুরের নিরিবিলি ছায়াঘেরা পিকনিক স্পট গুলো ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। রাজধানীতে নিরিবিলি পরিবেশ পরিবেশ হ্ওয়ায় গাজীপুরের পিকিনিক স্পটগুলো বেছে নেন পর্যটকরা।  ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে অনেক রিসোর্ট বুকিং হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।  সব মিলিয়ে ঈদকে কেন্দ্র করে ব্যস্ততা বেড়েছে গাজীপুরের রিসোর্ট ও পিকনিক স্পটগুলোতে।

গাজীপুরের বিভিন্ন পিকনিক স্পট ঘুরে এমন দৃশ্য দেখা গেছে। স্পটের সব প্রাণী ভাস্কর্যে রং দেওয়া হচ্ছে। পার্কের অভ্যন্তরে পর্যটকদের বেড়ানোর পথগুলো আগাছামুক্ত করা হচ্ছে।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক থেকে গাজীপুর সদর উপজেলার ভবানীপুর বাজারের পূর্বদিকে অবস্থিত গ্রিনটেক রিসোর্টের ব্যবস্থাপক আতিকুর রহমানের দাবি, ইতোমধ্যে তাদের প্রায় অর্ধেক রুম বুকিং হয়ে গেছে।

গ্রিনটেক রিসোর্টে কক্ষ রয়েছে ৭৩টি। প্রতিটি কক্ষ দুজন বসবাসের উপযোগী। ঈদ উপলক্ষে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে রিসোর্টে দেওয়া হয়েছে বাড়তি সাজ। ডিলাক্স ও ওয়াটার বাংলোর জন্য রয়েছে আলাদা প্যাকেজ। ডিলাক্স কক্ষের ভাড়া প্রতি দুজনের ক্ষেত্রে ৫ হাজার ৯০০ টাকা। এরসঙ্গে রয়েছে ২৩ ও ২৪ আগস্ট বারবিকিউ ও সুইমিংপুলের সুবিধা। ওয়াটার বাংলোর ভাড়া প্রতি দুজনের ক্ষেত্রে ৭ হাজার ৯০০ টাকা।

সাবাহ গার্ডেনের এক কর্মকর্তা জানান, তাদের কিছু রাইডেও রংবেরঙের সাজসজ্জা দেওয়া হয়েছে। তার কথায়, ‘ঈদে দর্শনার্থীদের চাপ একটু বেশি থাকে। প্রতিদিন কমপক্ষে ৫০০ দর্শনার্থীর আসেন আমাদের গার্ডেনে।

গাজীপুরের আরেক দর্শনীয় স্থান বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক। এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বনে উন্মুক্ত রয়েল বেঙ্গল টাইগার ও ভালুকের বাচ্চাসহ নতুন-পুরনো জেব্রা, ময়ূর, সিংহ ও বিরল প্রজাতির কিছু প্রাণিবৈচিত্র্য দর্শনার্থীদের আকর্ষণ করবে। তাদের বরণ করতে সাফারি পার্ক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রস্তুত রয়েছে।

গাজীপুরে ঈদের দিন সকাল থেকে পরবর্তী সাত দিন পর্যন্ত বাড়তি নিরাপত্তা বজায় রাখতে দায়িত্ব পালন করবে ট্যুরিস্ট পুলিশ। বেসরকারি রিসোর্ট ও বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ট্যুরিস্ট পুলিশ টহল দেবে। ঈদ উপলক্ষে যেকোনও ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে বাড়তি জনবল থাকবে গাজীপুর ট্যুরিস্ট পুলিশে।’